Home / শোক সংগীত

শোক সংগীত

(হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা ওয়াক্বিফ-

আহমাদ আলী পাটওয়ারী (রহঃ) এর স্মরণে)

——— শেখ মো. এনামুল হক

আল্লাহর ওলী আহমাদ আলী-

নাই তুমি আজ দুনিয়ায়,

তোমার জন্য কান্দে সবাই-

জ¦ীন-ইনসান আর ফেরেস্তায়।

চাঁদপুরের এই পূণ্য ভূমি-

জন্মে তোমার ধন্য হায়,

চির জীবন থাকবে বেঁচে-

ইতিহাসের সেই পাতায়।

হাজীগঞ্জের মাটির ধুলো-

পরশে তোমার আলোকময়,

আল্লাহ পাকের অসীম কৃপায়-

রহমতের-ই ঝর্ণা বয়।

মোদের নবী বলে গেছেন-

যে জন গড়ে খোদার ঘর,

রোজ হাসরের কঠিন দিনে-

তাহার কোন-ই নেই যে ঢর।

তাই তো তুমি গড়লে হেথায়-

বিলিন করে ধন ও মন,

“ঐতিহাসিক বড় মসজিদ”-

ভাগ্য এমন কোন্ সে জন ?

তোমার গড়া নজর কাড়া-

হাজীগঞ্জে খোদার ঘর,

আকাশ ছোয়াঁ মিনার নিয়ে-

দাঁড়িয়ে আছে জীবন ভর।

লক্ষ হাজার মমিন গণে-

রবের পায়ে লূটায় শির,

খোদার প্রেমিক আবেদ -ওলী-

এই খানেতে করছে ভিড়।

দেশ-বিদেশের কত মানুষ-

তার রুপেতে মুগ্ধ আজ,

একটি বারে দেখতে তারে-

আসছে তারা সকাল সাঁজ।

জান্নাতী এই ফুল কাননে-

আসছে ভ্রমর-অলির দল,

নয়ন জলে ভাসছে তারা-

খোদার পথে নেই তো ছল।

কেউবা বসে তসবীহ জপে-

কেউবা জিকির নিত্য দিন,

দু’হাত তুলে করছে দোয়া-

করতে পুরন খোদার ঋণ।

ফুরফুরা আর শর্শীণাদের

আল্লাহ আল্লাহ সুর ধ্বনী,

চরমোনাইয়ের আশেক গনের-

“মাওলা” ডাকের তান শুনি।

তাবলীগের-ই দ্বীনের পাগল-

কতশত মুসলমান,

খোদার তরে বিলিন করে-

দিচ্ছে তাদের মাল ও জান।

বীর মুজাহিদ আহমাদ আলী-

তোমার গড়া এই বাগান,

“ঐতিহাসিক বড় মসজিদ”

বাড়–ক তাহার শান ও মান।

কবর দেশে শুয়ে-ই তুমি-

পাচ্ছো সোয়াব হিসাব হীন,

চির জীবন পেয়েই যাবে-

থাকলে ধরায় খোদার দ্বীন।

দ্বীনের খাঁটী বিদ্যাকেতন-

ছিল তোমার হৃদয় মাঝ,

সেই আকুতি করছে পূরণ-

আল্লাহ তায়ালা এই তো আজ।

মসজিদের-ই সামনে দেখো-

কাওমী কেতন উড়ছে আজ,

আহমাদ আলী তোমার নামেই-ই-

পাচ্ছে শোভা দ্বীনের তাজ।

নয়ন জোড়া অট্রালিকা-

গাইছে প্রভুর মহান গান,

আল্লাহ প্রেমিক বান্দাগণের-

তৃপ্ত হৃদয় ভরছে প্রাণ।

আল-কুরআনের মহান বানী-

পড়ছে কত ছাত্রগন,

ঐশী বানীর গুঞ্জরণে-

জুড়ায় হৃদয় জুড়ায় মন।

রাতের শেষে কুরআন ধ্বনী-

ঐ নীলিমায় যায় মিশে,

ফুল কলিদের ঐ মিছিলে-

ঐশী নূরের ঘ্রাণ আসে।

তোমার আশা’র এই জামিয়ায়-

নবীর হাদিস শিক্ষা হয়,

প্রিয় নবীর সুন্নাহগুলো-

এই খানেতে রক্ষা হয়।

শত হাজার এলেম পাগল-

আসছে সবাই এইখানে,

হেরার আলো লাভ করিতে-

ছুটছে ভ্রমর সেই টানে।

জান্নাতী এই ফুল কাননে-

ফুটছে গোলাপ নিত্যদিন,

গুল বাগিচার ফুল কলিরা-

ভূলবেনা কেউ তোমার ঋণ।

সকাল-সাঁজে নিত্য দিন-ই-

তোমার জন্য হাত তুলে,

ক্ষমার জন্য করছে আরজ-

প্রভূর কাছে প্রাণ খোলে।

ছোট্ট ছেলে অশ্রু চোখে-

চাইছে তোমার মাগফিরাত,

মাসুম শিশু ও কাঁদছে ওরা-

মাগছে ক্ষমা রাত বিরাত।